শিরোনাম:

আগামীকাল লক্ষ্মীপূজায় এই কয়েকটি কাজ ভুলেও করবেন না, পাপে জীবন শেষ হয়ে যাবে..

মা লক্ষ্মী হলেন ধন সম্পদ, সৌন্দর্যের ও সৌভাগ্যের দেবী। তিনি হলেন ত্রিগুনের মধ্যে রজগুনের প্রতীক। সংসারী মানুষদের জীবন ধারন করার জন্য এই রজগুনের বিশেষ গুণ আছে। লক্ষ্মী শব্দের অর্থ হল সকলে যাকে লক্ষ করেন বা দর্শন করেন এই শ্রী মূর্তি। দেবী সর্বদা পদ্ম ফুলের ওপর বিরাজিতা। এই কোজাগরী পূর্ণিমায় বা শারদ পূর্ণিমাতে দেবীর আরাধনা করলে দেবী সকলের বাসনা পূর্ণ করেন।

দেবী সকলকে যশ, ক্ষ্যাতি, ধন সম্পদ ও সৌন্দর্য প্রদান করেন। বলা হয় যারা এই কোজাগরী লক্ষ্মী পুজোর দিনে মাকে ভক্তি ভরে, শ্রদ্ধা সহকারে পুজো করেন তারা সারাবছর মায়ের কৃপা দৃষ্টিতে থাকবেন, মায়ের আশীর্বাদ প্রাপ্ত হয় তাদের জীবনে। এই পুজোর দিন এমন কিছু জিনিস আছে যা করলে মা ক্রুদ্ধ হন। তাই ভুলেও এই কাজ গুলি পুজোর দিন করবেন না। আসুন আমরা জেনে নেই সেই জিনিস গুলি সম্পর্কে…

১) এই পুজোতে কাঁশর ঘন্টা বাজাতে নেই। কারণ দেবী উচ্চ শব্দে বিরক্ত হন। ২) মা লক্ষ্মীকে কখনো তুলসী পাতা দিতে নেই। কারণ তুলসী হলো লক্ষ্মী দেবীর সতীন। ৩) লোহার কোনো বাসন পত্র কখনোই লক্ষ্মী দেবীর পুজো তে ব্যাবহার করবেন না। কারণ লোহা দেওয়া হয় অলক্ষ্মীকে। তাই এমনটা করলে মা লক্ষ্মী সঙ্গে সঙ্গে আপনার গৃহ থেকে বিদায় নেবেন।

৪) পুজোর সময় ধুপ দীপ ও বাতি যেনো অবশ্যই যেন মায়ের ডান দিকে রাখা হয়। ৫) পুজোর সময় সাদা ফুল একেবারেই লক্ষ্মী দেবীকে অর্পণ করবেন না কারণ তিনি হলেন বিবাহিতা নারী, তাই সর্বদা লাল বা গোলাপি ফুল মায়ের পুজো তে অর্পণ করুন। ৬) কালো বা সাদা বস্ত্রের ওপর মা লক্ষ্মী দেবীর মূর্তি কখনোই রাখবেন না।

এই সব জিনিস গুলো পুজোর দিন আপনারা অবশ্যই খেয়াল রাখবেন। কারণ মায়ের আশীর্বাদ সর্বদা আপনার ও আপনার পরিবার কে রক্ষা করবে। তাই পুজোর দিনে এই কাজ গুলি থেকে বিরত থাকবেন। কারণ আমরা সবাই মায়ের কৃপাতেই জীবন ধারণ করে থাকি। তাই মা কে সন্তুষ্ট রাখা আমাদের প্রধান কর্তব্য। কারণ মা যদি সন্তুষ্ট থাকেন তাহলে পরিবার ও থাকবে সুখে শান্তিতে।

Check Also

শনি বা মঙ্গলবার বালিশের নিচে চুপচাপ রেখে দিন এই জিনিসটি, ভাগ্য থাকবে তুঙ্গে, সুখ শান্তি আসবে..

মানুষের জীবনে দুঃখ কষ্ট সবারই আছে। সবাইকে প্রায় প্রতি নিয়ত কোন না কোন সমস্যার সম্মুখীন …