শিরোনাম:

আগামীকাল রাধাষ্টমী , সঠিক নিয়মে করুন এই কাজ, সুখ আসবে জীবনে, মনষ্কামনা পূরণ হবে..

হিন্দু ধর্ম অনুসারে জন্মাষ্টমীতে কৃষ্ণের আবির্ভাব দিবস পালনের কয়েক দিন পরেই শ্রীরাধিকার জন্মদিবস। ভাদ্র মাসের শুক্লপক্ষের অষ্টমী তিথিতে রাধার জন্ম হয়েছে বলে মনে করা হয়। এই দিনটিকে রাধাষ্টমী হিসেবে পালন করা হয়। এবছর রাধাষ্টমী ব্রত ২৬শে আগস্ট পালিত হবে। এই দিনে অষ্টমী তিথি শুরু হয়েছে ২৫শে আগস্ট বিকালে এবং অষ্টমী থাকবে ২৬শে আগস্ট দুপুর ২টা বেজে ৩১ মিনিট পর্যন্ত।

শাস্ত্র অনুসারে, শ্রী রাধিকা কৃষ্ণের জন্মদিনের পনের দিন পরে শুক্লপক্ষের অষ্টমীতে রাজা বৃষানুর যজ্ঞ ভূমি থেকে আবির্ভূত হয়েছিলেন। রাধা হল বিষ্ণুপ্রিয়া লক্ষ্মীর অবতার। তাই রাধাষ্টমীর দিন যদি আপনি এই কাজগুলি করেন তাহলে আপনার সংসারে সুখের অভাব হবেনা। মনষ্কামনা পূরণ হবে।

রাধা-কৃষ্ণ ভক্তদের জন্য রাধাষ্টমীর বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। হিন্দু শাস্ত্রে বিশ্বাস করা হয় যে, যিনি এই ব্রত রাখেন তাঁর কোনওদিন অর্থের অভাব হয় না। শ্রীকৃষ্ণ ও রাধারাণীর আশীর্বাদ সর্বদা তাদের উপর বজায় থাকে। এই কারণেই ভক্তরা প্রথমে তার আরাধ্য কৃষ্ণের পুজো করার আগে রাধা রানীর পুজো করেন। বিশ্বাস করা হয় রাধাষ্টমীর উপবাস করলে সমস্ত পাপ বিনষ্ট হয়। 

এই দিন সূর্যোদয়ের আগে ঘুম থেকে উঠে স্নান সেরে পরিষ্কার পোশাক পরুন। সূর্যোদয়ের আগে উঠতে না পারলে স্নান করে গঙ্গাজল মাথায় দিন। তারপর ঠাকুরের স্থানে লাল বা হলুদ কাপড় পেতে তার উপরে শ্রীকৃষ্ণ ও রাধার মূর্তিটি স্থাপন করুন। মূর্তির সামনে পুজোর ঘটও স্থাপন করুন।

তারপঅর পঞ্চামৃত দিয়ে রাধা ও কৃষ্ণের স্নান করান। এরপর দুজনকেই নতুন বস্ত্র পরিয়ে সাজিয়ে দিন। ফুল-ফল নৈবেদ্য সাজিয়ে দিন, প্রয়োজনে ভোগও দিতে পারেন। এরপর রাধা কৃষ্ণের মন্ত্রগুলি জপ করুন ও রাধা কৃষ্ণের আরতি করুন। তারপর মনষ্কামনা জানান ভক্তি ভরে।

Check Also

শনি বা মঙ্গলবার বালিশের নিচে চুপচাপ রেখে দিন এই জিনিসটি, ভাগ্য থাকবে তুঙ্গে, সুখ শান্তি আসবে..

মানুষের জীবনে দুঃখ কষ্ট সবারই আছে। সবাইকে প্রায় প্রতি নিয়ত কোন না কোন সমস্যার সম্মুখীন …